আন্তর্জাতিক যোগাসনে সোনা জিতল হাওড়ার অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী প্রিয়ঞ্জনা!বঙ্গকন্যার জয়ের সাফল্যে খুশির হাওয়া হাওড়ায়


দেবরীনা মণ্ডল সাহা :- অদম্য ইচ্ছা শক্তি থাকলে মানুষ নিজের মনের ইচ্ছা পূর্ণ করতে পারে | ঠিক তেমনই যোগাসনের হাত ধরেই থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাঙ্ককের আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় ২ টি সোনার এবং ১ টি রুপোর পদক জয় করল শ্যামপুরের নাওদা নয়নচন্দ্র বিদ্যাপীঠের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী প্রিয়ঞ্জনা | ছোট থেকেই নাচের উপর ঝোঁক ছিল প্রিয়ঞ্জনা জানার | তবে শুধু নাচ শেখাই নয়, পাশাপাশি রিদমিক যোগাসনও শিখতে শুরু করে প্রিয়ঞ্জনা | আর সেই রিদমিক যোগাসনই তাকে পুরস্কার এনে দিল সর্বভারতীয় প্রতিযোগিতায়| আন্তর্জাতিক যোগাসন প্রতিযোগিতায় শ্যামপুরের নাওদা নয়নচন্দ্র বিদ‍্যাপীঠের ছাত্রী প্রিয়ঞ্জনা জানা থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককে অনুষ্ঠিত ইন্টারন্যাশনাল অ্যামেচার গেমের অষ্টম আন্তর্জাতিক সাব জুনিয়র যোগাসন প্রতিযোগিতায় ট্র্যাডিশনাল যোগাসন, রিদিমিক যোগাসন প্রতিযোগিতায় স্বর্ণপদক এবং আর্টিস্টিক যোগাসন প্রতিযোগিতায় রৌপ্য পদক অর্জন করলেন| শুক্রবারই প্রিয়ঞ্জনা ব্যাঙ্কক থেকে বাড়ি ফিরেছে | প্রিয়ঞ্জনার এই সাফল্যে তার পরিবারের সদস্যদের পাশাপাশি খুশি এলাকার মানুষ ও তার সহপাঠীরা | জানা গিয়েছে, গত ২৭ শে এবং ২৮ শে মার্চ ৮ম আন্তর্জাতিক যোগাসন প্রতিযোগিতার আসর বসেছিল থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাঙ্ককে | প্রতিযোগিতায় ট্র্যাডিশনাল, রিদিমিক এবং আর্টিস্টিক বিভাগের যোগাসন প্রতিযোগিতায় ভারত ছাড়াও সাতটি দেশের প্রতিযোগীরা ৮ টি ক্যাটাগরিতে অংশ নিয়েছিল | হাওড়া জেলা থেকে প্রিয়ঞ্জনা জানা এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিল |মাত্র ৩ বছর বয়সে বাড়িতে যোগাসনের হাতেখড়ি প্রিয়ঞ্জনার‌ | যোগাসনের পাশাপাশি নৃত্যের প্রতি ঝোঁক বাড়ে শ্যামপুরের এই কিশোরীর | পরবর্তী সময় নৃত্য শিক্ষিকার পরামর্শে বছর তিনেক আগে প্রিয়ঞ্জনা যোগাসন শেখার জন্য ভর্তি হয় উলুবেড়িয়ার বাগ বডি বিল্ডিং সেন্টারে | এখানেই শিক্ষক প্রদীপ দেড়ের কাছে তার যোগাসন শেখা | শুক্রবার প্রিয়ঞ্জনা জানায়, “আমার বাবা বিদ্যুৎ দফতরের সামান্য মিটার রিডার‌ | আর্থিক প্রতিবন্ধকতার মাঝেই পরিবারের সদস্যদের উৎসাহে উলুবেড়িয়ার সেন্টারে যোগাসন শেখার জন্য ভর্তি হই | তবে শ্যামপুর থেকে নদী পেরিয়ে উলুবেড়িয়ায় যেতে প্রচুর সমস্যা হত |” প্রিয়ঞ্জনা জানায়, “গত ২৬ শে মার্চ ব্যাঙ্ককের উদ্দ্যেশে রওনা দেওয়ার পর ২৮ শে মার্চ ১০ থেকে ১৫ বছরের সাব জুনিয়র বিভাগের প্রতিযোগিতায় অংশ নিই | এরপর প্রতিযোগিতায় ২ টি সোনার ও ১টি রুপোর পদক লাভ করি |” প্রিয়ঞ্জনার মা এই বিষয়ে জানান, “ছোট থেকেই আমাদের মেয়ের যোগাসনের প্রতি আকর্ষণ | আমরা কোনোদিন এতে বাধা দিইনি | ও সম্পূর্ণ নিজের চেষ্টাতেই আজকে এই সাফল্য লাভ করেছে|” শুক্রবার উলুবেড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনে ট্রেন থেকে নামার পর প্রিয়ঞ্জনা জানাকে হাওড়া জেলা বডি বিল্ডিং ও যোগাসন অ্যাসোসিয়েশন, ওয়েস্ট বেঙ্গল স্টেট যোগ কালচার অ্যাসোসিয়েশন ও অল ইন্ডিয়া যোগ কালচার ফেডারেশন এর অনুমোদিত সংস্থা হাওড়া উলুবেড়িয়া বাগ বডি বিল্ডিং এর পক্ষ থেকে সংবর্ধনা দেওয়া হয় |শ্যামপুরের আমড়দহ অঞ্চলের সীতাপুর গ্রামের মেয়ে প্রিয়ঞ্জনা জানার সাফল‍্যে গর্বিত ও আনন্দিত প্রিয়ঞ্জনাকে তার বিদ‍্যালয় নাওদা নয়নচন্দ্র বিদ্যাপীঠের পক্ষ থেকে সংক্ষিপ্ত সংবর্ধনা দেওয়া হয় |


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

three × 4 =