এ যেন ধর্মের সঙ্গে বিজ্ঞানের মেলবন্ধন!গঙ্গাসাগরে মানুষরূপী চন্দ্রযান ৩ দেখার জন্য উপচে পড়ছে মানুষের ভিড়


দেবরীনা মণ্ডল সাহা :- শুরু হয়ে গিয়েছে গঙ্গাসাগর মেলা | লক্ষ লক্ষ মানুষের ভিড়ে জমে উঠেছে কপিলমুনির আশ্রম প্রাঙ্গন| এর মধ্যেই দেখা গেল এক অবাধ দৃশ্য| চন্দ্রযান মাথায় নিয়ে সাগরে হাজির এক পুণ্যার্থী |শিল্পী গোপাল মণ্ডল নিজেকে সাজিয়ে তুলেছে চন্দ্রযান-৩- এর আদলে | প্লাস্টিক দিয়ে বানানো চন্দ্রযান-৩-এর রকেট মাথায় নিয়ে সারা গায়ে সোনালী রঙ মেখে সাগর তটে দাঁড়িয়ে রয়েছেন তিনি |

ইসরোর চন্দ্রযান-৩ চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে সফল অবতরণ করে ইতিহাস গড়েছে | ইতিহাস গড়ার পর থেকেই বিভিন্ন জায়গায় এই চন্দ্রযান তিনের সাফল্যের কথা বিভিন্নভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে | দুর্গাপুজো হোক বা কালীপুজো, জগদ্ধাত্রী পুজো থেকে শুরু করে বড়দিন চন্দ্রযান-৩ এর সাফল্যের কথা ফুটিয়ে তোলা হয়েছে দেশজুড়ে,বাদ গেল না গঙ্গাসাগর মেলাও |

শিল্পী গোপাল মণ্ডল সকাল থেকে রাত পর্যন্ত খালি গায়ে রোদ ঠান্ডা সব সহ্য করে ঠায় দাঁড়িয়ে | তার এই অভিনব রূপ দেখার জন্য ভিড় জমাচ্ছেন পুণ্যার্থীরা | প্রতিবছর নতুন নতুন রূপে তিনি উপস্থিত হন গঙ্গাসাগর মেলায় | গত ১৭ বছর ধরে তিনি এমভাবেই আসেন | প্রতি বছর তাঁকে ঘিরে তৈরি হয়ে মানুষের উন্মাদনা | এবছর তার ব্যতিক্রম হয়নি | বহুরূপী গোপাল মণ্ডলকে কাছে পেয়ে অনেকেই তাঁর সঙ্গে সেলফি তুলছেন | কেউ বা তাঁকে দেখে দাঁড়িয়ে পড়ছেন হঠাৎ | সব মিলিয়ে মেলার রূপকে আরও বাড়িয়ে দিয়েছেন তিনি |গোপাল মণ্ডল জানালেন যে এখনও অনেক বাচ্চারা ভারতের সাফল্যের ব্যাপারে ওয়াকিবহাল নয়, সেই কারণেই তিনি বাচ্চাদের কাছে ভারতের সাফল্যের কথা তুলে ধরার জন্য এই উদ্যোগ নিয়েছেন কপিল মুনির আশ্রমের সামনের সাগর তটে |

প্রতিদিন ১০ থেকে ১৫ মিনিট সময় ব্যয় করে নিজেকে এভাবে সাজিয়ে তোলেন শিল্পী গোপাল মণ্ডল | পূর্ণ্যার্থীরা ১০-২০ টাকা তার হাতে ধরিয়ে দিয়ে যাচ্ছেন কিন্তু এতে কী আর পেট চলে | এই কথাগুলো বলতে বলতেই কান্নায় ভেঙে পড়লেন গোপাল মণ্ডল | তাঁর বক্তব্য সরকার যদি এগিয়ে আসে তাহলে বহুরূপী হয়ে সাধারণ মানুষকে বিনোদন দিতে পারবেন ভবিষ্যতেও | সব মিলিয়ে মেলার রূপকে আরও বাড়িয়ে দিয়েছেন তিনি |


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

six + 1 =