চলে গেলেন কলকাতার প্রথম কাব্যারে ড্যান্সার তথা অভিনেত্রী মিস শেফালী

রাজকুমার দাস :

দীর্ঘদিন ধরেই কিডনী সমস্যায় ভুগছিলেন।আজ সকল ৬টায় শেষ মেষ জীবন যুদ্ধে হেরে গেলেন এক সময়ের সত্তর দশকের যুব তরুণের কাছে হার্টথ্রব তথা বাংলার প্রথম কাব্যারে ড্যান্সার ও অভিনেত্রী মিস শেফালী।তার আসল নাম ছিল আরতি দাস।তখনকার দিনে কাব্যারে ড্যান্স করাটা সমাজের চোখে ছিল অনেকটাই ভ্রু কোচকানো ।ভালো চোখে কেউ নিত না। তখন বলিউড এ হেলেন এর নাচ ,কিন্তু কলকাতার নাম উঠলেই মিস শেফালী।চির যৌবনের এক অধ্যায়।তার নাচের গুনে আবদ্ধ তখনকার কিশোর থেকে যুবক সকলেই।তাই তো তিনি শুধু ওখানেই থেমে ছিলেন না,সাথে সাথে অভিনয় করেছেন বেশ কিছু বাংলা ও হিন্দি চলচ্চিত্রে।সত্যজিৎ রায়ের সাথে প্রথম কাজ করেন “প্রতিদ্বন্ধি”-(১৯৭০)ছবিতে।পাশাপাশি “সীমাবদ্ধ”(১৯৭১),”রাজ বধূ”(১৯৮২),”পেন্নাম কলকাতা”(১৯৯২)প্রমুখ।
হিন্দী ছবির মধ্যে উল্লেখনীয়
“গাঁওয়ার”,”শরাফত”,”আগ আউর দাগ”(১৯৭০),”ব্রহ্ম বিষ্ণু মহেশ্বর”,”কারাভান”,”লাল পাত্থর”(১৯৭১),”শোর”(১৯৭২),”পিয়াসী নদী”,”ব্ল্যাক মেল”,”গদ্দার”,(১৯৭৩),”মনোরঞ্জন”,”কল গার্ল”,”মোদহোশ “,(১৯৭৪),”বুলেট”(১৯৭৬),”হাত্যারা”,”হাম কিসিসে কম নেহি”(১৯৭৭),”রাম বলরাম”(১৯৮০)প্রমুখ ছবিতে তার অভিনয় ও নাচ দুই দেখেছে দর্শকরা।
একটা সময় নাটকে ও তার বিচরণ ছিল।সেই সময় “সম্রাট ও সুন্দরী”,”সাহেব বিবি গোলাম”,”ও “অশ্লীল”-নাটকে অভিনয় মানুষের মুখে মুখে ঘুরতো।
উত্তম কুমারের সাথে ও ছিল তার ভালো সম্পর্ক।

একটা সময় কলকাতার সন্ধ্যায় মিস শেফালী কে রাতপরি বলা হতো।
সেই মানুষটির আজ প্রায় ৭৬বছর বয়সে কিডনী র সমস্যায় আমাদের ছেড়ে অচিন দেশে পাড়ি যা সত্যিই বেদনা দায়ক।তার মৃত্য সত্যি একটা যুগের অবসান।তাঁর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।