জনশতাব্দী এক্সপ্রেস ছাড়ল প্রায় সাড়ে ৩ ঘণ্টা দেরিতে!হাওড়া স্টেশনে যাত্রী বিক্ষোভ,ভাঙচুরের চেষ্টা ক্ষুব্ধ জনতার


দেবরীনা মণ্ডল সাহা :- ট্রেন ছাড়তে অতিরিক্ত দেরি করায় হাওড়া স্টেশনে যাত্রী বিক্ষোভ | জানা গেছে, বার্বিল জনশতাব্দী এক্সপ্রেসের হাওড়া থেকে ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল মঙ্গলবার সকাল ৬টা ২০মিনিটে | কিন্তু নির্ধারিত সময় পেরিয়ে গেলেও ট্রেন স্টেশনে ঢোকেনি বলে অভিযোগ | যাত্রীরা বারবার অনুসন্ধান অফিসে গিয়ে খোঁজ করতে থাকেন | কিন্তু সেখান থেকেও কোনও তথ্য জানতে পারেননি | বিরক্ত যাত্রীদের একাংশ অনুসন্ধান অফিসের কর্মীদের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন, বচসা গড়ায় ধস্তাধস্তিতে | তাতে ভেঙে যায় অনুসন্ধান অফিসের কাচ | সেখানে থাকা ডিজিটাল ডিসপ্লে বোর্ড ছুড়ে ফেলে দেওয়া হয় মেঝেয় বলে অভিযোগ | পরিস্থিতি সামলাতে হাজির হন দক্ষিণ–পূর্ব রেলের আধিকারিকরা | তাঁরা এসে ট্রেন ছাড়ার সময় জানানোর পর শান্ত হন যাত্রীরা | দক্ষিণ–পূর্ব রেলের তরফে জানানো হয়েছে, রেক প্লেসমেন্ট করতে দেরি হওয়ার ফলেই এই সমস্যা তৈরি হয় | শেষ পর্যন্ত সকাল ১০টা নাগাদ জনশতাব্দী এক্সপ্রেস হাওড়া স্টেশনের ২০ নম্বর প্ল্যাটফর্ম থেকে গন্তব্যের দিকে রওনা দেয় |

এই বিষয়ে দক্ষিণ পূর্ব রেলের সিনিয়র ডেপুটি ডিসিএম (খড়গপুর)জানান, ট্রেনেটির রেক প্লেসমেন্ট করতে দেরী হয় | যে কারণে সমস্যা হয় | যাত্রীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন| তবে ঠিক কী কারনে দেরি হল তা জানতে বিস্তারিত রিপোর্ট চেয়ে পাঠানো হচ্ছে | তাঁদের রিপোর্ট পেলেই জানা যাবে | দশটা নাগাদ ট্রেন দেওয়া হয় কুড়ি নম্বর প্লাটফর্মে | তারপর ট্রেনটি হাওড়া স্টেশন থেকে ছেড়ে যায় যাত্রীদের নিয়ে | তবে রেলের একটা সূত্রে মারফত জানা গিয়েছে, ট্রেনটি বেশ কিছু দেরিতে এসেছিল | তারপর রেগুলার চেকিং চলার সময় ট্রেনের তিনটি কামরা ও পাওয়ার কার-এ সমস্যা দেখা যায়| ফলে সেই কামরাগুলি কেটে অন্য কামরা লাগানো হয় | আর সেই কারণেই এই ঘটনা|

লোকাল হোক বা এক্সপ্রেস, ট্রেন সময়ে চলে না বলে প্রায় প্রতিদিনই অভিযোগ ওঠে যাত্রীদের তরফ থেকে | হাওড়া হোক বা শিয়ালদা ডিভিশন, চিত্রটা সর্বত্রই এক | কয়েক মাস আগেই ট্রেন দেরিতে চলাচলের জন্য যাত্রী বিক্ষোভের খবর উঠে আসে|


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

4 × 4 =