পাঁচলায় ঝন্টি শীতলা কালী মন্দিরে জ্যৈষ্ঠ মাসের অমাবস্যা তিথিতে মহাসমারোহে পালিত হল ফলহারিণী কালী পুজো!


শঙ্খ ভট্টাচাৰ্য :- প্রতি বছর জ্যৈষ্ঠ মাসের অমাবস্যা তিথিতে পালিত হয় দেবী কালীর ফলহারিণী রূপের | সেই কারণে এইদিনে যে পুজো হয় তাকে ফলহারিণী কালী পুজো বলা হয় | আর জ্যৈষ্ঠ অমাবস্যাকে বলা হয় ফলহারিণী অমাবস্যা | রাজ্যের অন্যান্য জায়গার পাশাপাশি হাওড়ার পাঁচলায় ঝন্টি শীতলা কালী মন্দিরে মহাসমারোহে পালিত হল ফলহারিণী কালী পুজো |অন্যান্য অমাবস্যা তিথির মতোই ফলহারিণী অমাবস্যার বিশেষ মাহাত্ম্য রয়েছে | মনে করা হয়, এই দিনে স্বয়ং দেবী ভক্তের মনের সাধ পূরণ করার জন্য ধরাধামে নেমে আসেন | এদিন দেবীকে নানা মরশুমি ফল দিয়ে পুজো করার বিধি প্রচলিত আছে |এদিন ঝন্টি শীতলা কালী মন্দিরে দূর-দূরান্ত থেকে বহু মানুষ নিজেদের মনস্কামনা পূর্ণ করতে পুজো দিতে আসেন |

বিশিষ্ট সমাজ সেবী জ্যোতিষ নক্ষত্র রনজিৎ ঘোষাল মহাশয় ঝন্টি শীতলা কালী মন্দির ও করুণাময়ী আশ্রম প্রতিষ্ঠা করেন |
২০১৮ সালে ২৪ ফেব্রুয়ারী এই মন্দির প্রতিষ্ঠা হয়েছিল |এই মন্দিরের প্রতিষ্ঠাতা স্বর্গীয় রনজিৎ ঘোষাল | আগে শরিকী শীতলা কালী মন্দির ছিল | সেটি নানা কারণে বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর রনজিৎ ঘোষাল একদিন মায়ের স্বপ্নদেশ পান,তারপর ৬ মাসের মধ্যে এই মন্দির প্রতিষ্ঠিত করেন |বর্তমানে এই মন্দির সামলান রনজিৎ ঘোষাল-এর জামাই অভিজিৎ ঘোষাল|

অভিজিৎ ঘোষাল জানান,এই বিশেষ অমাবস্যায় মায়ের চরণে ফল অর্পণ করা হয়, যাতে নিজেদের করা পাপ থেকে মা আমাদের মুক্ত করেন | জৈষ্ঠ মাসের অমাবস্যায় ফলহারিণী কালীপুজো করলে মা কালীর আশীর্বাদ লাভ করা সম্ভব হয় |


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

3 + seven =